নিজে বাঁচুন অন্য কে বাঁচার সুযোগ দিন ঈদের শুভেচ্ছায় হাজী মতিউর রহমান

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ঢাকার শিল্পাঞ্চল আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের সদস্য ও স্বনির্ভর ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মতিউর রহমান মতিন আশুলিয়া বাসীসহ দেশবাসীকে ঈদুল ফিতরের অগ্রীম শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

এসময় তিনি আরও বলেন, বর্তমানে বিশ্বে যে মহামারী করোনা ভাইরাস আতংক বিরাজ করছে তাতে করে আমরা যদি সচেতন না হই তাহলে যেকোন সময় তা কঠিন মহামারী আকার ধারণ করতে পারে। তাই আসছে ঈদুল ফিতরের সকলে সরকারি স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলবেন এবং সরকারি আদেশ পালন করবেন বলে আমি আশাবাদী। নিজে বাঁচুন অন্যকেও বাঁচার সুযোগ করে দিন। জীবনের চেয়ে বড় কিছুই নয়। তাই আপনারা যে যেখানে আছেন সেখানেই পবিত্র ঈদুল ফিতর উৎযাপন করবেন। সবাইকে অগ্রীম ঈদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। ঈদ মোবারক।

উল্লেখ্য হাজী মোঃ মতিউর রহমান মতিন ঢাকা জেলার সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানার পবনারটেকের ঐতিহ্যবাহী সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ছাত্র জীবন থেকে তিনি আওয়ামী রাজনীতি সাথে জড়িত। তিনি বর্তমানে ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। সম্প্রতি তিনি নবগঠিত আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহবায়ক কমিটির সদস্যও নির্বাচিত হয়েছেন।

রাজনীতিতে এগিয়ে চলেছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীদের ভালোবাসা, আন্তরিকতা আর সহযোগিতা নিয়ে। আওয়ামী লীগের প্রতিটি কার্যক্রমে তিনি সক্রিয় ভুমিকা পালন করে চলেছেন। বিগতদিনে বিএনপি জোট সরকারের বিরুদ্ধে রাজপথে আন্দোলন-সংগ্রামের অগ্রভাগে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

তিনি শুধু একজন রাজনৈতিক নেতাই নন, একজন শিক্ষানুরাগী এবং সমাজসেবকও বটে। তিনি এলাকার বিভিন্ন রাস্তা ঘাট, মসজিদ-মাদ্রাসা স্কুল কলেজসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রমের সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত আছেন।

এব্যাপারে রাজনৈতিক নেতা, শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক হাজী মোঃ মতিউর রহমান মতিন জনপ্রিয় পত্রিকা দৈনিক জাগো জনতাকে জানান, আমি বাল্যকাল থেকেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর আদর্শ কে বুকে লালন করে আওয়ামী রাজনীতির করি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আমার প্রাণের সংগঠন। আমি বিশ্বাস করি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জম্ম না হলে আজকে আমরা একটি স্বাধীন দেশ পেতাম না। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপ্ন ছিলো বাংলাদেশকে একটি সোনার বাংলা হিসাবে গড়ে তোলা। কিন্ত কিছু কুচক্রি মহল ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে। ভাগ্যক্রমে সেসময় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা দেশের বাহিরে থাকায় প্রাণে বেঁচে যায়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি তা সততার সহিত পালন করবো ইনশাআল্লাহ।

About newsroom