বিএনপি’র ঘাটি নরসিংদীকে আওয়ামী লীগের ঘাটিতে পরিনত করেছি-এমপি হিরু

0
579
স্টাফ রিপোর্টার: এক সময়ে বিএনপির ঘাটি হিসেবে পরিচিত নরসিংদী জেলা বর্তমানে আওয়ামীলীগের ঘাটিতে পরিনত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী, বর্তমান নরসিংদী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও নরসিংদী-১ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য লে: কর্ণেল (অব:) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু, বীরপ্রতীক। তিনি দৈনিক জাগো জনতার একান্ত সাক্ষাৎকারে একথা বলেন। প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ বর্তমান নরসিংদী জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অস্থিরতা বিরাজ বিষয়ে আরো বলেন, এক সময় নরসিংদী জেলার ৫টি আসনেই বিএনপি মনোনীত এমপি ছিল। ঐ সময়ে জেলায় আওয়ামীলীগের জনসভায় লক্ষনীয় কোন জনসমাগম হতো না। বর্তমানে জেলা আওয়ামীলীগের সকল জনসভায় দলীয় নেতা-কর্মী ও মানুষের উপচে পড়া ভীড় দেখা যায়। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে থেকে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের পূর্ব পর্যন্ত নরসিংদীতে উন্নয়নের কোন ছোঁয়া লাগেনি। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতাগ্রহণের পর নরসিংদীতে আমি দলকে অত্যন্ত সুসংগঠিত করে গড়ে তুলেছি। নরসিংদীবাসীর জীবনমান উন্নয়নে রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ-কালভাট তৈরী ও শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ এবং চরাঞ্চলের সাথে নরসিংদীবাসীর সহজ ও দ্রুত যোগাযোগের লক্ষ্যে শেখ হাসিনা সেতু নির্মাণ করে নরসিংদীর প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলকে শহরে পরিণত করেছি। যাতে করে নরসিংদী জেলার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের জনসাধারণ শহরের সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারে । ফলে দল-মত নির্বিশেষে নরসিংদীর সর্বস্তরের জনগণের কাছে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পেয়েছে । এতে ইর্শ্বান্বিত হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির সাথে হাত মিলিয়ে একটি মহল বিভিন্নভাবে আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করাসহ জেলা আওয়ামীলীগের ভাবমুর্তি ক্ষুন্নে হীন প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি এসময় দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়ষী প্রশংসা করে বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে দেশের স্বাধীনতা সূর্যকে অস্তমিত করতে চেয়েছিল কিন্তু আমাদের নেত্রী তা হতে দেয়নি। তিনি নিজের জীবনকে বাজি রেখে আমাদের মাঝে সূর্যের আলো হয়ে এসেছেন। দেশের মানুষের কল্যাণে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি আমাদের শিখিয়েছেন কিভাবে ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে এগিয়ে যেতে হয়। আমরা তাঁর আদর্শের অনুচর। ইনশআল্লাহ অরিচরেই এই নরসিংদীতে ষড়যন্ত্রকারীদের সকল ষড়যন্ত্র পরাস্ত হবে।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি ও নরসিংদী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক জিএস এস.এম কাইয়ুম জানান, জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে এমপি হিরু ভাই অন্যন্য এক ব্যক্তিত্ব। যিনি দলীয় স্বার্থে একজন আপোসহীন নেতা। নরসিংদীর উন্নয়নে তাঁর অবদান বলে শেষ করা যাবে না। তাঁর সততা ও আদর্শের কারণে যে সকল মহলের স্বার্থ ক্ষুন্ন হচ্ছে তারাই হিরু ভাইয়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরণের অপপ্রচার চালাচ্ছে।
নরসিংদী পৌরসভার প্যানেল মেয়র রিপন সরকার জানান, এমপি হিরু ভাই নরসিংদীবাসীর প্রাণ পুরুষ। যার নেতৃত্বে আজকের জেলা আওয়ামীলীগ সুসংগঠিত এবং যার দক্ষ তত্ত্বাবধানে নরসিংদীবাসী উন্নয়নের ছোঁয়ায় পুলকিত। জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অস্থিরতা বিষয়ে তিনি জানান, এমপি হিরু ভাই নরসিংদী বাসীর উন্নয়নের পাশাপাশি দলের ভাবমুর্তি রক্ষায় নরসিংদীতে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজী, মাদক ও সন্ত্রাস নির্মুলে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। তাঁর এই কঠোরতায় যে সকল মহলের স্বার্থ ক্ষুন্ন হয়েছে বা হচ্ছে তারাই এমপি হিরু ভাইয়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরণের অপপ্রচার চালিয়ে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে হিরু ভাইকে বিতর্কিত করতে চাইছে।
নরসিংদী জেলা শহর যুবলীগের সাবেক সভাপতি আশরাফ হোসেন সরকার বর্তমানে জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অস্থিরতা বিরাজের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, একটি স্বার্থন্মেষী মহল দলের এবং এমপি হিরু ভাইয়ের ভাবমুর্তি ক্ষুন্নে উঠেপড়ে লেগেছে।
তিনি এসময় আরো বলেন, এমপি হিরু ভাই প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয়, তিনি দল-মত নির্বিশেষে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে আওয়ামীলীগের সুনাম বৃদ্ধিতে সচেষ্ট। ইতোমধ্যে এই মহলটি আমাকে আমার রাজনৈতিক জনপ্রিয়তায় ইর্শ্বান্বিত হয়ে নরসিংদী পৌরসভার সাবেক মেয়র লোকমান হত্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করেছে। নরসিংদীবাসী জানে নরসিংদীর উন্নয়নে আমি ও আমার পরিবারের অবদানের কথা। বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে আওয়ামীলীগ বিরোধী দলে থাকা অবস্থায়  নরসিংদীতে যেখানে আওয়ামীলীগের কোন অস্তিত্ব ছিলো না সেখানে আমি ও আমার পরিবার দলের কল্যাণে জীবনবাজি রেখে কাজ করেছি। সে সময়ে আমার বড় ভাই আলহাজ্ব আবদুল মতিন সরকার একাধিকবার নরসিংদী পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে দলের কল্যাণে এবং মানুষের কল্যাণে নি:স্বার্থভাবে কাজ করেছে। অথচ আজ দল ক্ষমতায় থাকার পরেও আমারা বিভিন্নভাবে নির্যাতিত হচ্ছি। এতে আমার ও আমার পরিবারের কোন আক্ষেপ নেই। কেননা আমরা দলকে ভালোবাসি। বিগত সময়েও দলের স্বার্থে নিজের ব্যক্তিস্বার্থ বিসর্জন দিয়ে কাজ করেছি, এখনও এমপি হিরু ভাইয়ের নেতৃত্বে কাজ করে যাচ্ছি। ইনশআল্লাহ সকল হয়রানি, মামলা-হামলা উপেক্ষা করে আগামীতেও দলের কল্যাণে হিরু ভাইয়ের নেতৃত্বে কাজ করে যাবো।